মালকা বানুর দেশে বিভাগীয় খবর

মালকা বানুর দেশে বিভাগীয় খবর, চট্টগ্রামের ইতিহাস এবং দেওয়াং পরগণার ইতিহাস অনুসারে শেরমস্ত খান

ছিলেন বাংলার সুবাদার মুঘল সম্রাট শাহজাহানের দ্বিতীয় পুত্র শাহ সুজার (প্রিন্স সুজা) সেনাপতি।

আর শেরমস্ত খানের একমাত্র ছেলে জবরদস্ত খান ওরফে মনু মিয়া। মনু মিয়া প্রথমে কাট্টলীর

জমিদার দেওয়ান বদিউজ্জামানের বোন খোরসা বানুকে বিয়ে করেন।খোরসা বানুর কোন সন্তান না থাকায়

তিনি চট্টগ্রামের বাঁশখালীর সরল গ্রামের বণিক মেয়ে মালকা বানুর সাথে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। মালকা-মানুর

প্রেমের গল্প মালকা বানুকে দেখা এবং পরে তাকে বিয়ে করার উপর ভিত্তি করে।ইতিহাসের বই থেকে

জানা যায়, মনু মিয়া একদিন পাইক-পথচারী নিয়ে জমিদারি দেখতে বাঁশখালীর সরল গ্রামে গিয়েছিলেন।

সেখানে বণিক বাড়িতে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেন।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

মালকা বানুর দেশে বিভাগীয় খবর

এ সময় মনু মিয়া এক ব্যবসায়ীর মেয়ে মালকা বানুকে দেখতে পান।মালকা তখন কাজী মক্তবে অধ্যয়নরত। এরপর মনু মিয়া কাজীর কাছ থেকে মালকা বানু সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পান। কাজির মক্তবে, মনু আবার মালকাকে কাছে থেকে দেখেছিল। তখন মনুর খাওয়া-দাওয়া বন্ধ হয়ে গেল। মনুর মনে শুধু মালকা। মনুর মালকা চায়।এরপর থেকে মনু মালকা বানুর বাড়িতে ছুটতেন। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে মালকা-মানুর প্রেমের গল্প। একজন আরেকজনকে ছাড়া বাঁচতে পারে না। একদিন মনু মক্তব কাজীর মাধ্যমে মালক বানুর বাবার কাছে সওদাগরের বাড়িতে সরাসরি বিয়ের প্রস্তাব দেয়। মালকারের বাবাও মনুর প্রস্তাবে খুশি হলেন।কিন্তু মালকা নিচু হয়ে গেল। তিনি বাজি ধরে নৌকায় নদী পার হতে ভয় পান।

তাই রাস্তা ধরতে হবে একথা শুনে

মনু দেরি না করে নদীর উপর বাঁধ দিয়ে রাস্তা তৈরি করে মালকা আনার সিদ্ধান্ত নেন। মনুশঙ্খ নদী বাঁধের জন্য প্রস্তুত হন এবং নদী বাঁধের জন্য হাজার হাজার শ্রমিক নিয়োগ করেন। বাঁধের নির্মাণ কাজ শেষ হলে শুরু হয় বিয়ের আয়োজন। মালকা এলো মনুর বাড়িতে। মালকা-মানুর এই প্রেম ও বিয়ের গল্প অবলম্বনে রচিত লোকগান এখনো গ্রামবাংলার মানুষের কাছে জনপ্রিয়।ইতিহাসে মনু মিয়ার পিতা জেনারেল শেরমস্ত খান ছিলেন এক হাজার সৈন্যের সেনাপতি। হাজারী ফোর্ট বা হাজারীহাটের নামকরণ করা হয়েছে বটতলী গ্রামের লস্কর ভিটা এবং উজির ভিটাকে কেন্দ্র করে তাদের বাড়ির বাম এবং ডান পাশে এবং হাজার হাজার সৈন্যের দুর্গ কারণ তারা বিশাল মুঘল আমলের কামান, প্রচুর আগ্নেয়াস্ত্র, ঘোড়া এবং হাতির নিয়ন্ত্রণে ছিল।

যুদ্ধক্ষেত্রে ১৯৬০ সালে মনু

মিয়ার বাড়ির পশ্চিম দিক থেকে প্রায় ২৬ পাউন্ড ওজনের একটি মুঘল আমলের কামান উদ্ধারের পর, শাহ সুজার সেনাপতি শেরমস্ত খান তৎকালীন অবস্থান নিশ্চিত করেন। কামানটি বর্তমানে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে রয়েছে।এমনকি মালকা বানুর গর্ভে মনু মিয়ার গর্ভে কোনো সন্তান জন্ম নেয়নি। নিঃসন্তান মনু মিয়ার মৃত্যুর পর তাকে পাশের কাজীর পাহাড় এলাকায় সমাহিত করা হয়। মনুর মৃত্যুর পর তার প্রথম স্ত্রী খোরসা বানু স্বামীর বাড়িতে থাকলেও তার দ্বিতীয় স্ত্রী মালকা বানু বাঁশখালীর সরল গ্রামে বাবার বাড়িতে চলে আসেন।মনু মিয়ার কোনো উত্তরাধিকার না থাকলেও মনু মিয়ার মসজিদ, কবরস্থান ও বিস্তীর্ণ দীঘি ইতিহাসের কথা বলে।‘মালকা বানুর দেশে রে, বিয়ের বাদ্য আলা বাজে রে/ মালকার বিয়া হইলো মনু মিয়ার সাথে রে’ গানটি শোনেননি এমন মানুষ বিরল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button